মির্জাপুরে উন্নয়নের ছোয়া পরেনি কাইতলা-দড়ানিপাড়া ৩ কি. মি. রাস্তা

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল ॥
উন্নয়নের ছোয়া পরেনি অবহেলিত পাহাড়ি জনপথের কাইতলা-দড়ানিপাড়া ৩ কি. মি. রাস্তার। ফলে চলাচলের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসিকে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ১৩ নং বাঁশতৈল ইউনিয়নের গোড়াই-সখীপুর রোড সংলগ্ন কাইতলা-দড়ানিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে যাওয়ার ৩ কি. মি. রাস্তার এই বেহাল অবস্থার চিত্র দেখা গেছে। আজ বুধবার কাইতলা-দড়ানিপাড়া ৩ কি. মি. রাস্তার ঘুরে দেখা গেছে যোগাযোগের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসির দুর্ভোগের চিত্র।
দড়ানিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাহফুজুর রহমান ও সাবেক চেয়ারম্যান মো. শামসুল আলম শামছু জানান, কাইতলা-দড়ানিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় যাওয়ার এই রাস্তাটি অত্যান্ত গুরুত্বপুর্ন। এই রাস্তা দিয়ে দড়ানিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়, দড়ানিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর পেকুয়া উচ্চ বিদ্যালয়, উত্তর পেকুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাঁশতৈল উচ্চ বিদ্যালয়, বাঁশতৈল খলিলুর রহমান ডিগ্রি কলেজ, কাইতলা, বাঁশতৈল ও তক্তারচালা হাটসহ আশপাশের ৮-১০ টি গ্রামের শিক্ষার্থীসহ লোকজন যাতায়াত করে আসছে। সামান্য একটু বৃষ্টি হলেই পুরো রাস্তার উপর কাঁদা পানি জমে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। রাস্তাটি পাকা করনের জন্য দীর্ঘ দিন ধরে দাবী জানিয়ে আসছেন এলাকাবাসি। কিন্ত আজ পর্যন্ত পাকা না হওয়ায় তাদের দুর্ভোগের শেষ নেই। গুরুত্বপুর্ন রাস্তাটি পাকা করনের জন্য এলাকাবাসি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন।
বাঁশতৈল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আতিকুর রহমান মিল্টন বলেন, কাইতলা-দড়ানিপাড়া রাস্তাটির উন্নয়নের জন্য বরাদ্ধ চেয়ে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রকৌশলী অফিসকে অবহিত করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ আরিফুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কাইতলা-দড়ানিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে যাওয়ার রাস্তাসহ বিভিন্ন এলাকার কাঁচা, আধাপাকা রাস্তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ব্রিজ-কালভার্টের উন্নয়নের জন্য প্রকল্প তৈরী করে প্রায় ৬০ কোটি টাকার বরাদ্ধ চেয়ে মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্ধ পেলে কাইতলা-দড়ানিপাড়া রাস্তাটির দ্রুত উন্নয়ন করা হবে।