পুলিশ বাহিনীকে দক্ষ গড়ে তুলতে সরকার কাজ করছে— মির্জাপুরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল ॥
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক মো. ফরহাদ হোসেন এমপি বলেছেন, পুলিশ বাহিনীকে আধুনিকায়ন ও সু-শৃঙ্খল দক্ষ বাহিনী গড়ে তুলতে বর্তমান সরকার নিরলস ভাবে কাজ করছেন। সরকারের নিরলস প্রচেষ্টা ও আন্তরিকতার কারনে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের পুলিশ বাহিনী এখন রোড মডেল ও বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। পুলিশই জনতা জনতাই পুলিশ এই শ্লোগান এবং পুলিশের সেবার কর্মকান্ডে জনগনের কাছে পুলিশ এখন আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। তিনি আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টার (পিটিসি) পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নে এসব কথা বলেন।
দুপুর আড়াইটার দিকে প্রতিমন্ত্রী স্বপবিারে মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টার পরিদর্শনে এলে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসন, মির্জাপুর উপজেলা প্রশাসন এবং পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের কর্মকর্তাগন তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের বিভিন্ন অকাঠামো ও দর্শনীয় স্থান পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশের মধ্যে মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টার অন্যতম প্রতিষ্ঠান। জমিদারদের রেখে যাওয়া বিশাল এলাকা নিয়ে গঠিত পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আন্তরিক প্রচেষ্টায় স্থাপন হয়েছিল। বর্তমান সরকার ও প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক সহযোগিতায় মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টার আধুনিকতার ছোয়া পরেছে। এখানকার দক্ষ পুলিশ কর্মকর্তাদের কর্মতৎপরতায় এখানে প্রতিবছল সৃ-শৃঙ্খল পুলিশ বাহিনী গড়ে উঠছে যা দেশ ও বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশে মুখ উজ্জল করছে। মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এবং পুলিশ বাহিনীর সু-শৃঙ্খল দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি। মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারকে আরও আধুনিক ও উন্নয়নের জন্য সরকার থেকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
এ সময় টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি, এনডিসি মো. আনোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আমিনুল ইসলাম, মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবদুল মালেক, সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মীর্জা মো. জুবায়ের হোসেন, মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের (পিটিসির) এডিশনাল ডিআইজি ও (ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার) মাহবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার মো. আব্দুর রহিম শাহ চৌধুরী, এডিশনাল এসপি শেখ রাজিবুল হাসান, এএসপি মহসিনুল হক, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (মির্জাপুর সার্কেল) মি. দীপংকর ঘোষ এবং মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ রিজাউল হক শেখ দীপু উপস্থিত ছিলেন।