মির্জাপুরে নারীকে হত্যা চেষ্টা মামলায় তিন আসামীর জেল

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে জমি নিয়ে বিরোধে এক নারীকে ধারালো অস্্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা মামলায় তিন আসামিকে জেল দিয়েছেন টাঙ্গাইলের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. সাউদ আল হাসান। গতকাল রোববার (২২ জানুয়ারি) এ রায় ঘোষণা করেন। প্রায় ৬ বছর পর আদালতের ন্যায় বিচার পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন মামলার বাদী নিরীহ ও অসহায় সাজ্জাদ হোসেন ও তার পিতা দেলোয়ার হোসেন।
সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন, মির্জাপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের পুষ্টকামুরী গ্রামের বদর উদ্দিনের ছেলে মো.বাচ্চু মিয়া (৫৬), বাচ্চু মিয়ার ছেলে পারভেজ (২৮) এবং সামছু মিয়ার ছেলে ময়না মিয়া (৩৫)। এদের মধ্যে বাচ্চু মিয়াকে চার বছর, ময়না মিয়াকে তিন বছর এবং পারভেজকে এক বছর করে জেল দেওয়া হয়েছে। আসামী বাচ্চু ও ময়নাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বাচ্চু মিয়ার পুত্র আসামী পারভেজ পলাতক রয়েছে বলে আদালত সুত্র জানিয়েছেন।
আজ সোমবার (২৩ জানুয়ারি) মামলার বাদী ও আদালতে এজাহার সুত্রে থেকে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৮ জুলাই বাদী পক্ষ পৌরসভার অনুমোদনক্রমে তাদের বসত বাড়িতে নির্মান কাজ শুরু করেন। জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে পুর্ব শত্রুতার জের ধরে ঘটনার দিন আসামিরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে বাদীর পরিবারের সদস্যদের হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। হামলায় বাদীর পরিবারের সদস্য সাহিদা বেগম গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় আহতের ছেলে সাজ্জাদ হোসেন মির্জাপুর থানায় মামলা করেন। মামলার প্রায় ৬ বছর পর ৮ জনের সাক্ষ্য শেষে বিচারক গতকাল রবিবার এ রায় প্রদান করেন।
এ ব্যাপারে রাষ্ট্র পক্ষের এপিপি মো. আব্দুল মোত্তালিবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার বলেন, বাদী পক্ষের সকল তথ্য প্রমান পর্যালোচনা শেষে এবং সাক্ষ্য শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে যুগান্তকারী এ রায় প্রদান করেছেন। পলাতক আসামী পারভেজের বিরুদ্ধে আদালতের নির্দেশনায় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে মামলার বাদী অসহায় নিরীহ সাজ্জাদ হোসেন ওতার পিতা দেলোয়ার হোসেন বলেন, দীর্ঘ দিন পর আদালতের রায় পেয়ে আমরা খুঁশি। দেশে এখনও যে ন্যায় বিচার হয় এই রায়ই তার প্রমান। তারা পলাতক আসামী পারভেজকে গ্রেফতার ও রায় কার্যকর করার জন্য জোর দাবী জানিয়েছেন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here